“অ্যাডমিশন অ্যাসিস্ট্যান্ট” বাংলাদেশের একটি বৃহত্তম স্টুডেন্ট কমিউনিটি। এখানে এইচএসসি এবং বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা বোর্ড এক্সাম ও ভর্তি পরীক্ষার পূর্ণাঙ্গ প্রস্তুতি এবং প্রয়োজনীয় সকল তথ্য ও সেবা পেয়ে থাকে। গত ২০১৮ সালে আমাদের যাত্রা শুরু এবং এখন পর্যন্ত লক্ষাধিক শিক্ষার্থী আমাদের সেবা গ্রহণ করেছে।

প্লেস্টোরে “Admission Assistant” লিখে সার্চ দিলেই আমাদের অ্যাপটি তোমরা পেয়ে যাবে। এছাড়াও বিস্তারিত তথ্যের জন্য ভিজিট করতে পারো www.admissionassistant.com.bd

দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে অধিকাংশ শিক্ষার্থীই তার শিক্ষাজীবন নিয়ে শংকিত। পাশাপাশি করোনা পরিস্থিতির কারণে প্রচলিত কোচিং সেন্টারেও শিক্ষার্থীরা যেতে পারছে না। আমরা চাই দুর্যোগপূর্ণ মূহুর্তে পাশে থেকে প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা দিয়ে তোমাদের মনোবল চাঙ্গা রাখতে। পাশাপাশি আমাদের অভিজ্ঞ শিক্ষকমন্ডলী দ্বারা ভর্তি প্রস্তুতিতে তোমাদের সর্বোচ্চ সহায়তা করতে। এ কারণে দেশের প্রতিটি কলেজেই আমাদের প্লাটফর্মটিকে ছড়িয়ে দিতে চাই, যেন আরো বেশী সংখ্যক শিক্ষার্থী আমাদের সেবা নিতে পারে।

প্রতি কলেজের বিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষা এবং মানবিক বিভাগ হতে প্রতি বর্ষে ২ জন করে (১ জন ছেলে ও ১ জন মেয়ে) এম্বাসেডর নেয়া হবে।

*বুঝার সুবিধার্থে লক্ষ করো:-

বিজ্ঞান বিভাগের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের মধ্য থেকে ২ জন (ছেলে+মেয়ে) এবং যারা ২য় বর্ষে আছে তাদের মধ্য থেকে ২ জন (ছেলে+মেয়ে)

তাহলে একটা কলেজ থেকে মোট ৩*২*২ (৩ গ্রুপ *২ জন করে *২ বর্ষ থেকে) ১২ জন এম্বাসেডর নেয়া হবে।

যাদের মাঝে মূলত নেতৃত্বের গুণাবলী আছে তারাই কলেজ এম্বাসেডর হিসেবে প্রায়োরিটি পাবে। বিশেষ করে কলেজের কোন বড় অরাজনৈতিক সংগঠনের উচ্চপদস্থ কেউ, যার কথার মূল্যায়ন তার ব্যাচমেট করতে পারে বলে মনে হয় এবং কলেজে আমাদের বিভিন্ন এক্টিভিটি সুষ্ঠ ভাবে পালনে যে সহায়তা করতে পারবে।

সেক্ষেত্রে মেধাবী এবং নেতৃত্বের গুণাবলী ২ টাই হলে সবচেয়ে ভাল হয়।

দায়িত্বঃ

মূলত আমাদের অ্যাপের সার্ভিসগুলোর কথা বন্ধুদের কাছে পৌঁছানো এবং আমাদের বিভিন্ন ক্যাম্পেইন এ অংশগ্রহণ করাই তাদের প্রধান কাজ। পাশাপাশি প্রতি ৩ মাস পর পর আমরা কলেজ ভিত্তিক বিভিন্ন কনটেস্ট এর আয়োজন  করবো, সেখানে প্রোগ্রাম অর্গানাইজ করার দায়িত্ব থাকবে তাদের (এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা প্রোগ্রাম অর্গানাইজ করার দায়িত্ব থেকে বাদ থাকবে)।

সুযোগ সুবিধাঃ

অ্যাপের প্রিপারেশন সংক্রান্ত সকল সেবা তারা ফ্রিতে এক্সেস করতে পারবে, সেক্ষেত্রে তার উপর অর্পিত দায়িত্ব সঠিক ভাবে পালন করতে হবে। এছাড়াও এম্বাসেডরদের নিয়ে আমরা আলাদা গ্রুমিং সেশন করবো এবং তাদের জন্য স্পেশাল শিক্ষক নিয়োজিত থাকবে, যারা তাদের পড়ালেখার খোঁজ খবর রাখবে এবং তাদের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করে দিবে। তাছাড়া বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষাকালীন সময়ে তাদের থাকার ব্যবস্থার দায়িত্বও আমাদের।

পরিশেষে বলা যায়, তাদের একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হবার উপযুক্ত হিসেবে গড়ে তুলতে সব ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করবে টিম অ্যাডমিশন অ্যাসিস্ট্যান্ট এবং আমরা এর জন্য দ্বায়বদ্ধ।

আমাদের সিলেক্টেড এম্বাসেডরগণ তোমাদের একটি লিংক পাঠিয়েছে, সেটি ফিলাপ করলে আমাদের এইচআর টিম প্রাথমিক যাচাই বাছাই শেষে তোমাদের নাম ঘোষণা করবে এবং যারা সিলেক্টেড হবে তাদের মোবাইলে SMS এর মাধ্যমে জানানো হবে।

প্রথমত যে তোমাকে লিংকটি পাঠিয়েছে তার সাথে যোগাযোগ করবে। যদি সে তোমার সমাধান দিতে না পারে তবে আমাদের অ্যাডমিশন অ্যাসিস্ট্যান্ট অ্যাপের ফেসবুক পেইজে যোগাযোগ করো। 

তোমাদের সবার সুস্বাস্থ্য কামনা করছি।

ঘরে বসে অনলাইনেই এখন পূর্ণাঙ্গ ভর্তি প্রস্তুতি!!

এই করোনা পরিস্থিতিতে তুমি কোচিং সেন্টারে ভর্তি হওয়া নিয়ে চিন্তিত? তোমার স্বপ্নপূরণে পাশে আছে টিম অ্যাডমিশন অ্যাসিস্ট্যান্ট ।অ্যাডমিশন অ্যাসিস্ট্যান্ট অ্যাপের মাধ্যমে যে কোন শিক্ষার্থী খুব সহজে ঘরে বসেই নিতে পারবে বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির পূর্ণাঙ্গ প্রস্ততি। তাই এখন ই প্লেস্টোর থেকে নামিয়ে নাও “Admission Assistant” অ্যাপটি এবং তোমার স্বপ্ন পূরণে একধাপ এগিয়ে থাকো।

বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি প্রস্তুতি এখন হাতের মুঠোয়